প্রযুক্তি

অফ পেজ এসইও কি ? (Off Page SEO) কিভাবে করতে হয়?

অফ পেজ এসইও অফ সাইট এসইও কি? অফ পেজ এসইও মূলত সার্চ ইঞ্জিন ফলাফলের পৃষ্ঠাগুলোর মধ্যে আপনার ওয়েবসাইট কে অন্যান্য প্লাটফর্মে পরিচিত করার পদ্ধতি । লিংক করার মাধ্যমে অফ পেজ এসইও করা যায়। অফ পেজ এসইও তে রয়েছে ব্যাসিক এসইও এর বেশ কিছু ফ্যাক্ট যেগুলো আপনার ওয়েবসাইটকে রেংক করাতে সাহায্য করে। এসইও অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইটকে অপটিমাইজ করে সেটি অনপেজ হোক অথবা পেজ। অফ পেজ এসইও আপনার ওয়েবসাইটকে প্রমোট করে। অন্য একটি পৃষ্ঠা বা সাইট এর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটে প্রমোট করা হয় এর মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা আপনার সাইটের প্রতি আরও আস্থাবান হয়ে ওঠেন যার কারণে অফ পেজ এসইও এর জন্য আপনার পেজ আরো বেশি অপটিমাইজ হয় এবং আপনার ভিজিটর বাড়তে থাকে।

যখন বিভিন্ন সোর্স থেকে আপনার ওয়েবসাইট সম্পর্কে গুগোল কলার পজেটিভ সিগন্যাল পায় তখন google-এ আপনার পোস্ট করার সম্ভাবনা বেশি থাকে কারণ আপনার ওয়েবসাইটটি ইতোমধ্যে গুগলের কাছে বিশ্বস্ত হয়ে গেছে। আর একেই বলা হয় অফ পেজ এসইও।

আপনি যদি শপিং করে থাকেন তাহলে অফ পেজ এসইও এর একটি উদাহরণ দিয়ে আপনি সেটি বুঝতে পারবেন। আপনি যে ভাল মানের ব্যান্ড হতে সকল জিনিসপত্র ক্রয় করেন সেটি অবশ্যই আপনি কারো কাছ থেকে জেনেছেন অথবা সেই ব্র্যান্ড সম্পর্কে ভালো কমেন্ট, রিভিউ অথবা অ্যাডভার্টাইজমেন্ট দেখেছেন। সে কারণেই আপনার মনে হয়েছে সেই ব্র্যান্ডের পণ্য আপনার কেনা উচিত। এই বিষয়টি আসলে অফ পেজ এসইওর মত কাজ করে। যখন গুগোল আপনার ওয়েব সাইটের কনটেন্ট কে বিভিন্ন সোসিয়াল মিডিয়া কিংবা অন্যান্য ওয়েবসাইটে দেখে তখন গুগোল মনে করে আপনার ওয়েবসাইটটি একটি ভালো মানের ওয়েবসাইট যে কারণে এটি সকল প্লাটফর্মে আছে এবং এর প্রসার অনেক। স্বভাবতই গুগোল আপনার সাইটটিকে সার্চ রেজাল্টের ক্ষেত্রে উপরে স্থান দেয়।

আরো দেখুনঃ  ডিজিটাল মার্কেটিং কি ?

অফ পেজ এসইও দুইভাবে করা যায়। একটি হলো ব্যাকলিংক ক্রিয়েট করার মাধ্যমে অন্যটি সোসিয়াল অথরিটি তৈরি করার মাধ্যমে।

১। ব্যাক লিংক ক্রিয়েট করে
২। সোসিয়াল অথরিটি তৈরি করা

ব্যাকলিংক ক্রিয়েট করা

আপনার ওয়েব সাইটের কনটেন্ট দিকে একটি ভালো মানের ওয়েবসাইটে শো করানো হল ব্যাকলিংক। ভালো মানের যে ওয়েবসাইটটিতে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের লিংক দিয়েছেন ওয়েবসাইটের ভিজিটর পরবর্তীতে আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করার সম্ভাবনা থাকে তাই ভালো মানের ব্যাকলিংক করলে আপনার ওয়েবসাইট গুগলে রেঙ্ক করার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

আপনার কনটেন্ট যে বিষয়ে অবশ্যই আপনাকে ব্যাকলিংক করতে হবে সে বিষয়ের এর সাথে সম্পৃক্ত একটি ওয়েবসাইটে। ব্যাকলিংক হতে পারে কমেন্ট ব্যাকলিংক অথবা প্রফাইল ক্রিয়েশন ব্যাকলিংক। অনেকেই মনে করে এখন ব্যাক লিঙ্ক কাজ করে না তবে এটি সত্য নয়। যদিও গুগলের অ্যালগরিদম কে বোঝা অনেক কঠিন কিন্তু ব্যাকলিংক এখনো কাজ করে এবং আপনার ওয়েবসাইটকে গুগলের অ্যাড করতে সাহায্য করে।

কমেন্ট ব্যাকলিংক হল সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি ব্যাকলিংক করার জন্য। গুগোল কমেন্ট ব্যাকলিংক তেমনি করে এমন কোনো সত্যতা এখনো পাওয়া যায়নি।

সোশ্যাল অথরিটি

 

জনপ্রিয় মাধ্যম গুলোতে আপনার ওয়েবসাইটের লিংক শেয়ার করার মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইটটি কে আরো বেশি শক্তিশালী করতে পারেন। গুগোল প্রতিনিয়ত ফেসবুক, টুইটার, উইকিপিডিয়া, ইনস্টাগ্রাম, ইউটিউব এর মতো বড়-বড় সোসিয়াল মিডিয়া গুলো তাদের ক্রলার পাঠায়। যখন আপনার ওয়েবসাইটটি এসকল সোশ্যাল মিডিয়াতে থাকবে অর্থাৎ লিংক দেওয়া থাকবে তখন গুগল আপনার ওয়েবসাইট থেকে অনেক বেশি প্রাধান্য দেবে। এর কারণে আপনার ওয়েবসাইটটি গুগলের রেঙ্ক করার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া গুলো কে আপনার একটি প্রোফাইল তৈরি করে সেই প্রোফাইল এর মাধ্যমে আপনার ওয়েব সাইটের কনটেন্ট গুলো শেয়ার করে ওয়েবসাইটকে অপটিমাইজ করা যায় এবং ওয়েবসাইট গুগলে  রেঙ্ক করার সম্ভাবনা বাড়ানো যায়।

গেস্ট ব্লগিংয়ের মাধ্যমে অফ পেজ এসইও করা যায়। যেসকল পরিচিত ব্লগ সাইট রয়েছে সেখানে আপনার ডোমেইন এর সাথে মিল রেখে একটি ব্লগ পেজ খুলুন এবং সেখানে ছোট্ট একটি আর্টিকেল লিখেন আপনার কনটেন্ট এর লিংক শেয়ার করতে পারেন। এ ধরনের পদ্ধতি গুলো ব্যবহার করে কনটেন্ট কে গুগলে রেঙ্ক করানোর পদ্ধতি অনেক বেশী কার্যকর।

একজন ব্লগার এবং একজন এসইও এক্সপার্ট এর মধ্যে প্রধান পার্থক্য হল ব্লগার খুব সুন্দর ভাবে তার কনটেন্টকে উপস্থাপন করতে পারলেও অনেক সময় গুগলে রেংক করাতে পারে না যার ফলে তাঁর সুন্দর কনটেন্ট পৌঁছায় না অন্যদের কাছে। আর একজন এস এক্সপার্ট খুব সুন্দর ভাবে তার কনটেন্টকে উপস্থাপন করতে পারেন যার ফলে তার কনটেন্ট রেংক করে গুগলে। অফপেজ হোক অথবা ওয়ান পেজ এসইও হোক এ সম্পর্কে আপনাকে অবশ্যই কিছুটা জ্ঞান রাখতে হবে যদি আপনি আপনার কনটেন্ট কে গুগলের রেংক করাতে চান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button