প্রযুক্তি

ইউটিউব থেকে আয় করা যায় কিভাবে – জেনে নিন

ইউটিউব এখন বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম। যারা স্মার্ট ফোন ব্যাবহার করে তাদের প্রত্যেকেই ইউটিউব কখনো না কখনো ব্যবহার করেছেন। যারা ইউটিউব ব্যবহার করেন তারা অনেকেই আবার ইউটিউব চ্যানেল খুলেছেন নিজের ব্যবহারের সুবিধার্থে। অনেকে আবার সেই ইউটিউব কে বানিয়েছেন পেশা। ইউটিউব থেকে আয় করা যায় অনেক উপায় তার মধ্যে নিচে কয়েকটি দারুন উপায় শেয়ার করেছি যেগুলো ব্যবহার করে ইউটিউব থেকে আপনিও আয় করতে পারবেন।

যারা ইউটিউব থেকে আয় করছেন তারা অনেকেই জানেন ইউটিউব থেকে কনটেন্ট বানিয়ে সেই কন্টাক্ট এ বিজ্ঞাপন শো করে অর্থাৎ গুগল অ্যাডসেন্স মনিটাইজ অন করে আয় করা যায় । গুগল এডসেন্স মনিটাইজেশন করা ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও তৈরি করে আয় করতে পারবেন। এছাড়াও আরও কয়েকটি উপায় আছে ইউটিউব থেকে আয় করার সেগুলো নিচে বর্ণনা করা হলো।

 

বিজ্ঞাপন

 
আপনার যদি একটি ইউটিউব চ্যানেল থাকে তাহলে সেই চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচার করে আপনি ইউটিউব থেকে আয় করতে পারবেন । ইউটিউব থেকে আয় করার জন্য আপনাকে প্রথমে চ্যানেলটি মনিটাইজ করা লাগবে সে ক্ষেত্রে ইউটিউব এর কয়েকটি শর্ত আছে যে শর্তগুলো আপনি পূর্ণ করলে অবশ্যই ইউটিউব থেকে ভালো মানের আয় করা যাবে। বিজ্ঞাপন প্রচার করি youtubeথেকে আয় হলো প্রাথমিক পর্যায় । যাদের ইউটিউব চ্যানেলে গুগল অ্যাডসেন্স মনিটাইজ করা আছে তারা অবশ্যই ইতিমধ্যে বিজ্ঞাপন থেকে আয় করা শুরু করেছেন।
তবে নতুন একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলেই আপনি ইউটিউব থেকে আয় শুরু করতে পারবে না কারণ গুগল তাদের ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজ করা শর্ত রেখেছে 4 হাজার ঘন্টা ওয়াচ টাইম এবং ১০০০ সাবস্ক্রাইবার। যখন আপনার ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচ টাইম এবং ১০০০ সাবস্ক্রাইবার হবে এরপরে আপনি চ্যানেল মনিটাইজ করার জন্য আবেদন করতে পারবেন। আপনার চ্যানেল যদি ইউটিউবে সফল পলিসির সাথে মিলে যায় তাহলে অবশ্যই আপনার মনিটাইজেশন আপলোড করা হবে এবং আপনি গুগল এডসেন্স থেকে আয় করতে পারবেন।

ডোনেশন

ইউটিউবে আমরা দেখি নানান ধরনের স্ট্রিমার স্ট্রিম করে। কেউ গেমিং লাইভ স্ট্রিমিং করে অথবা অন্য যেকোনো লাইভ স্ট্রিমিং করে থাকে কনটেন্ট ক্রিয়েটর রা। তাদের ডোনেশনের ব্যবস্থা থাকে অর্থাৎ আপনি যদি তাদের ফ্যান হয়ে থাকেন অনেক সময় আপনি নিজেও তাদের ডোনেশন করতে চান। একই রূপে আপনি যদি আপনার একটি ফ্যান পেজ তৈরি করতে পারেন ইউটিউবে অর্থাৎ ভাল কনটেন্ট ক্রিকেটার হিসেবে অথবা লাইভ স্ট্রিমিং এর মাধ্যমে যদি আপনার ফ্যান বেস তৈরি হয় তাহলে আপনিও আপনার ফ্যান বেস হতে ডোনেশন নিতে পারবেন। ইউটিউব থেকে সরাসরি ডোনেশনের উপায় রয়েছে।

স্পনসর্শিপ

স্পন্সরশীপের মাধ্যমে ইউটিউব থেকে আয় করা যায়। আপনার ইউটিউব চ্যানেলের বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য ভালো ভালো কোম্পানিগুলো তাদের বিজ্ঞাপন প্রচার করে আপনার ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে। তবে ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে স্কলারশিপ পেতে হলে অবশ্যই আপনার অনেক বেশি বিভাগ থাকতে হবে এবং সেজন্য অন্যান্য কোম্পানি গুলো আপনার ইউটিউব চ্যানেলে অ্যাড সুপার একটা চাইবে।

এফিলিয়েট লিংক

অনেক সময় আপনি ইউটিউব থেকে পণ্য বিক্রি করে অথবা অন্যের লিংক শেয়ার করে আয় করতে পারেন। ইউটিউব ডেসক্রিপশন বক্সে লিঙ্ক শেয়ার করে আপনার ভিউয়ারস এই পণ্যটি কিনতে উদ্বুদ্ধ করতে পারেন এতে আপনার আর্নিং আসবে।

পণ্য বিক্রয়

আপনার অথবা অন্য যে কোন কোম্পানির পণ্য বিক্রয় করা যেতে পারে ইউটিউব এর মাধ্যমে। আপনার ইউটিউব চ্যানেল সে সকল পণ্য দেখিয়ে সেগুলো বিক্রি করতে পারেন এতে করে আপনার আয় করা সম্ভব।

আরো দেখুনঃ  ইউটিউব থেকে ভিডিও ডাউনলোড করবেন যেভাবে - জেনে নিন

একজন ভালো ইউটিউবার হয়ে গড়ে উঠলে সেখান থেকে অনেক বেশি ইনকাম করা সম্ভব। অনেকে ভালো ভালো সেক্টরের চাকরি ছেড়ে দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল এর মাধ্যমে করছেন অনেক বেশি। তাই আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি সঠিকভাবে গ্রোথ করে সেখান থেকে আপনিও ভালো মানের আর্নিং করতে পারবেন  

 
 
ইউটিউব থেকে আয় করার আরো কিছু মাধ্যম রয়েছে । আপনি আপনার পছন্দতো একটি বিষয় বেছে সে বিষয়ে আপনার চ্যানেল তৈরি করে ইউটিউব থেকে আয় করতে পারবেন। ইউটিউব থেকে আয় করতে আপনাকে অবশ্যই ইউটিউব এর সকল শর্ত মেনে চলতে হবে। আপনি যদি ইউটিউব এর সকল শর্ত মেনে না ভিডিও তৈরি করেন তাহলে আপনার চ্যানেল মনিটাইজড হবে না যার কারনে  আপনার ইউটিউব এর বিজ্ঞাপন থেকে আয় করার মাধ্যম টি বন্ধ হয়ে যাবে । তবে সেক্ষেত্রেও আপনি অন্যান্য আয়ের মাধ্যম গুলো ব্যাবহার করে আয় করতে  পারেন ইউটিউব থেকে । 
 
 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button