প্রযুক্তি

ক্রেডিট কার্ডের সকল সুবিধা ও অসুবিধা

ক্রেডিট কার্ড এমন এক ধরনের পেমেন্ট ব্যবস্থা যেখানে একাউন্টধারী   কেনাকাটা করলে কোন নগদ অর্থ প্রদান করতে হয় না তার পরিবর্তে অ্যাকাউন্টধারীর ক্রেডিট কার্ড হতে পেমেন্ট করতে হয়। ক্রেডিট কার্ডের ক্ষেত্রে যদি একাউন্টধারী ব্যালেন্স শেষ হয়ে যায় তাহলে ধার হিসেবে ক্রেডিট নেওয়া যায়। ক্রেডিট ধার শোধ করতে হয় প্রতিমাসে। কোন ব্যক্তি যদি এই ধার সময়ের মধ্যে পরিশোধ না করতে পারে তাহলে সুদ হিসাবে বাড়িতে থাকে তার ক্রেডিট পরিশোধের পরিমাণ।

একজন ব্যক্তি যতটুকু ক্রেডিট পরিষদের সক্ষমতা রাখে তার ক্রেডিট এর পরিমাণ ততটুকুই। ক্রেডিট ব্যুরো এর তথ্য অনুযায়ী প্রকাশ করা হয়। একজন ব্যক্তি যত বেশি ক্রেডিট থাকবে সে ব্যাক্তি ততবেশি ক্রেডিট ব্যবহার করে ক্রয় করতে পারবেন। যারা ঋণদাতা এবং ব্যাঙ্কগুলির কাছে বিশ্বস্ত তাদের ক্রেডিট এর পরিমাণ বেশি হয়। তারা বেশি কেনাকাটা করতে পারে। পরবর্তীতে সেই অর্থ পুনরায় জমা করার মাধ্যমে আবারো ক্রেডিট পূরণ করা যায়।

credit-cards

 

 

 

ক্রেডিট কার্ড সাধারণত ব্যাঙ্ক অথবা ফিনান্সিয়াল সার্ভিস কোম্পানি প্রদান করে থাকে। ক্রেডিট কার্ড কোম্পানিগুলো তাদের গ্রাহক কে অর্থপ্রদান না করেই কেনাকাটা করার অনুমতি দেয়। তবে পরবর্তীতে গ্রাহককে নির্ধারিত অর্থ প্রদান করতে হয় এবং এটি প্রতিমাসে গ্রাহক প্রদান করে । এটি একটি চক্রের মত কাজ করে। গ্রাহকের জন্য একটি ক্রেডিট লিমিট থাকে এবং এই ক্রেডিট লিমিট নির্ধারণ করা হয় গ্রাহকের ইনকাম এবং সম্পদ অনুযায়ী। একজন গ্রাহক যদি প্রতি মাসেই তার নির্ধারিত ক্রেডিট ব্যবহার এবং তা পুনরায় পূরণ করতে সক্ষম হয় তাহলে তার প্রেডিকেট পরিমাণ ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে। তবে বড় অংকের ক্রেডিট ব্যবহারের জন্য গ্রাহককে অবশ্যই এডিট কোম্পানি গুলোর অনুমতি নিতে হয়।

ক্রেডিট কার্ড রিওয়ার্ডস

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারকারীগণ কেনাকাটা করার পরে কিছু ক্যাশব্যাক  এবং রিওয়ার্ড পয়েন্ট পেয়ে থাকে। ক্রেডিট কার্ড প্রোভাইডার রয়েছে যারা সাইন আপ বোনাস প্রদান করে। বোনাস গুলো পেতে হলে অবশ্যই গ্রাহককে নির্দিষ্ট লক্ষ্য পূরণ করতে হবে।

ক্রেডিট কার্ডের নিরাপত্তা

ক্রেডিট কার্ডের নিরাপত্তা প্রদান করতে যথেষ্ট ভূমিকা রাখে কোম্পানিগুলো। ব্যবহারকারী তার ক্রেডিট কার্ডের ব্যবহার রেকর্ড অর্থাৎ কোন কোন কাজে লেনদেন করেছেন তা জানতে পারেন খুব সহজেই। ক্রেডিট কার্ড প্রোভাইডার কোম্পানিগুলোকে ফোন করে অথবা ক্রেডিট কার্ড প্রোভাইডার কোম্পানিগুলোর ওয়েবসাইট থেকে খুব সহজে দেখা যায় কোন অনাকাঙ্খিত লেনদেন হয়েছে কিনা।

ক্রেডিট কার্ড হারিয়ে গেলে করণীয়

ক্রেডিট কার্ড হারিয়ে গেলে ব্যবহারকারী যদি ক্রেডিট কার্ড প্রোভাইডার কে কল করে কারণ কি জানেন তাহলে ডেবিট কার্ড প্রভাইডার গুলো হারিয়ে যাওয়া কার্ডটি ব্লক করে নতুন একটি কার্ড দেওয়ার ব্যবস্থা করে।

ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা

ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা গুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় সুবিধা হল ক্যাশ বহন করতে হয় না, স্টেটমেন্ট খুব সহজে দেখা যায় এবং নিরাপত্তা।

credit-Card

ক্যাশ বহন করতে হয় না

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারকারীগণ তাদের ক্রেডিট ব্যবহার করেই কেনাকাটা করতে পারে। ওয়ালেটে অল্প জায়গা থাকলেও ক্রেডিট কার্ড খুব সহজে বহন করা যায়। ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করলে আলাদাভাবে আর ক্যাশ ব্যবহার করতে হয় না। বর্তমান বিশ্বে উন্নত দেশ সহ প্রায় সকল দেশেই ক্রেডিট কার্ড এর মাধ্যমে পেমেন্ট একটি আদর্শ পেমেন্ট মেথডে পরিণত হয়েছে। ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে টিকিট কাটা, অনলাইন পেমেন্ট, কেনাকাটা, বিল প্রদান সকল কিছুই করা যায়। ক্যাশ হারিয়ে গেলে তা ফেরত পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা থাকেনা। ব্যবহারকারী যদি ক্রেডিট কার্ড হারিয়ে ফেলেন তাহলে অল্প সময়ের মধ্যেই তা পুনরায় ফেরত পেয়ে যান।

স্টেটমেন্ট দেখা

দৈনন্দিন লেনদেন ও খরচের পরিমাণ, তারিখ, মার্চেন্ট এর নাম, হিস্টরি সকল তথ্য গুলো ক্রেডিট কার্ডের সংরক্ষিত থাকে। যারা ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে তারা খুব সহজেই তাদের দৈনন্দিন লেনদেনের হিসাব ঠিক রাখতে পারে। লেনদেনের সকল তথ্য হাতের নাগালে থাকায় খরচের হিসাব রাখা যায় খুব সহজেই। ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারকারীদের ট্র্যাক রেকর্ড প্রদান করে ক্রেডিট কার্ড কোম্পানিগুলো।

কিস্তিতে পণ্য কেনা

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের আরেকটি বড় সুবিধা হল কিস্তিতে পণ্য কেনা। বড় এমাউন্টের পেমেন্ট গুলো সহজে দীর্ঘমেয়াদি ছোট ছোট কিস্তিতে বিভক্ত করে পরিশোধ করা যায়।

জরুরী প্রয়োজনে ব্যবহার

ক্রেডিট কার্ডের বিল তৎক্ষণাৎ দিতে হয় না বলে জরুরি প্রয়োজনের কাজে অর্থের ব্যবস্থা করা খুব সহজ হয়ে পড়ে।

ক্রেডিট কার্ডের অসুবিধা

 

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের সুযোগ সুবিধা রয়েছে তা নয়। ব্যবহারের ক্ষেত্রে অনুযায়ী ক্রেডিট কার্ডের কিছু অসুবিধাও রয়েছে।

credit-card

অতিরিক্ত খরচ

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার যারা করে তৎক্ষণাৎ কোন অর্থ প্রদান করতে হয় না বলে অতিরিক্ত খরচের মানসিকতা তৈরি হয়। ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে অতিরিক্ত খরচ করা এবং ক্রেডিট কার্ডের লক্ষ্য পূরণ করতে না পারলে অতিরিক্ত খরচ হয়।

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে ঋণ নেওয়া

ক্রেডিট কার্ডে লক্ষ্য পূরণ না করে ব্যবহার করলে অতিরিক্ত ঋণ জমা হতে থাকে। এই ঋণ ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে । অনেক ব্যবহারকারী ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে খরচের হিসাব রাখে না যার কারণে ঋণ জমে যেতে পারে।

ক্রেডিট কার্ড এর ফি ও ইন্টারেস্ট

ক্রেডিট কার্ডের ইন্টারেস্ট অনেক সময় বাড়তে বাড়তে এমন পর্যায়ে চলে যায় যা ক্রেডিট কার্ড হোল্ডার এর নিয়ন্ত্রণের বাইরে। ক্রেডিট কার্ডের ইন্টারেস্ট অনেক সময় ব্যবহারের অজান্তে বাড়তে পারে।
দেরিতে পেমেন্ট, ব্যালেন্স ট্রান্সফার, ফরেন ট্রানজেকশন এ সকল বিষয়ে ক্রেডিট কার্ড কোম্পানিগুলো এক্সট্রা ফি চার্জ করে। কিছু কিছু  ক্রেডিট কার্ড কোম্পানিগুলো শুধুমাত্র ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের জন্য বার্ষিক ফি চার্জ করে।

নেতিবাচক ক্রেডিট স্কোর

ব্যবহারকারী যদি মাসের-পর-মাস তার প্রেডিকেট জমা পূরণ না করতে পারেন তাহলে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে অটো লোন বা যে কোন লোন সুবিধা নাও পেতে পারেন।

 

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের সুবিধা ও অসুবিধা দুটোই রয়েছে। যারা ক্রেডিট কার্ড সঠিকভাবে ব্যবহার করতে জানেন তাদের ক্ষেত্রে অসুবিধাগুলো কম হলেও যারা ক্রেডিট কার্ডের ব্যবহার সঠিকভাবে করে না তাদের জন্য বেশ অসুবিধায় পড়তে হয়। ক্রেডিট কার্ডের আবেদন করার পূর্বে অবশ্যই ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা অসুবিধা গুলো ভালভাবে জেনে নিতে হবে। ব্যবহারকারীর প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী ক্রেডিট কার্ড এর জন্য আবেদন করা উচিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button